আলু দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায়-Healthtips

 আলু দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায়

আলু দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায়
আলু দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায়-Healthtips

অন্যের মুখে নিজের সৌন্দর্যের প্রশংসা শুনতে কে বা না চায়। অর্থাৎ জন্মগতভাবে আমরা একেকজন একেক ধরনের গায়ের রং পেয়ে থাকি। কেউবা ফর্সা, কেউবা শ্যামলা। গায়ের রং কালো বা শ্যামলা হলে তা নিয়ে মন খারাপ করেন অনেকেই। আরেকটু উজ্জ্বলের আশায় আলু দিয়ে ফর্সা  ত্বক পাওয়ার আকাঙ্ক্ষা থাকে তাদের। আবার জন্মগতভাবে ফর্সা ত্বক পেয়েও ধুলোবালি আর রোদের কারণে তা হারাতে বসেন অনেকেই। তাই ত্বকের উজ্জ্বলতা ধরে রাখতে তখন নানারকম ক্রিম ব্যবহার করে থাকেন।


আমরা ত্বক ও চোখের নিচের কালো দাগ দূর করতে ও ত্বক উজ্জ্বল করতে কত প্রসাধনী ব্যবহার করে থাকি । এর জন্য আবার শসা সবচেয়ে বেশি ব্যবহার করে থাকি কিন্তু আমরা অনেকেই জানিনা মুখ চর্চা অর্থাৎ মুখের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির জন্য আলুর জুড়ি নেই।খুব সহজ ও দ্রুত আলু দিয়ে ত্বক উজ্জ্বল ও সুন্দর রাখতে পারি। কারন আলুতে রয়েছে বিভিন্ন প্রকার উপকারী উপাদান। যেমন ভিটামিন বি কমপ্লেক্স,পটাশিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম, ফসফরাস ও জিঙ্ক। এসব উপাদান প্রাকৃতিক ব্লিচিং এজেন্ট হিসেবে কাজ করে এবং কালো দাগ দূর করে ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ায়। এছাড়া চোখের নিচের কালো দাগ তুলতে আলোর জুড়ি নেই। 


আসুন জেনে নেই কীভাবে  আলু দিয়ে ত্বক ফর্সা হওয়ার উপায়গুলো।

১।আলু ও লেবুর রস।

সর্বপ্রথম একটি আলু  কুচি করে একটি বাটিতে রাখতে হবে।এরপর তার সঙ্গে আধা চা চামচ লেবুর রস মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণটি ভালোভাবে মুখে লাগিয়ে রাখুন ৩০মিনিট। এবার ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এইভাবে এক সপ্তাহ প্রতিদিন ব্যবহার করলে আপনি নিজেই দেখতে পারবেন এর কার্যকারিতা।

২।আলু, টমেটো ও দুধের সর।

আলু, টমেটো এবং দুধের সর ও মুখের উজ্জলতা বৃদ্ধি করার জন্য বেশ সহায়ক। তবে এটি একটি পদ্ধতির মাধ্যমে ব্যবহার করতে হবে। সেটি হল সর্বপ্রথম এক টুকরো আলু, একটি টমেটো এবং দুই চামচ দুধের সর একটি পাত্রে নিতে হবে। এরপরে একটি আলু এবং একটি টমেটো ভালোভাবে পেস্ট তৈরি করতে হবে এবং এই পেস্টটি দুধের সরের সাথে মিশাতে হবে।এরপরে প্রতিদিন সকালে এবং  ঘুমানোর সময় ব্যবহার করতে হবে।১০ থেকে ১৫ মিনিট মুখে রাখার পর ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ভালো ভাবে পরিষ্কার করতে হবে। এভাবেই প্রতিনিয়ত ব্যবহারের ফলে আপনার ত্বক হয়ে উঠবে উজ্জল লাবণ্যময়ী।

৩।আলু ও শসা।

সর্বপ্রথম একটি আলু এবং একটি শসা নিতে হবে। এরপরে চাকু অথবা বটি দিয়ে আলু এবং শসাকে ভালোভাবে কুচি করে একটি পাত্রে রাখতে হবে ।পাত্রে রাখার পরে আলু এবং শসা কুচি করা সুন্দর করে মিশ্রন করতে হবে।এরপরে সুন্দরভাবে মুখে ১০ মিনিট থেকে ২০ মিনিট লাগিয়ে রাখতে হবে ।এভাবেই প্রতিনিয়ত গোসলের ৩০ মিনিট আগে ব্যবহার করলে ত্বক হয়ে উঠবে উজ্জল।

৪।আলু, কাঁচা দুধ ও মধু।

ফর্সা হওয়ার জন্য আলুর সাথে কাঁচা দুধ ও মধু মিশিয়ে ব্যবহার করলে ভালো উপকার পাওয়া যায়। তবে এর জন্য একটি প্যাক তৈরি করতে হবে।সর্বপ্রথমে এক টুকরো আলু,৪ থেকে ৫ চামুচ কাঁচা দুধ, দুই চামুচ মধু নিয়ে ভালোভাবে মিশ্রণ করতে হবে ।তবে অবশ্যই আলুটি বেলেন্ডার মাধ্যমে পেস্ট করতে হবে।এরপর সুন্দর করে মুখে লাগিয়ে রাখুন। শুকিয়ে গেলে ধুয়ে ফেলুন। এই প্যাকটি শুষ্ক ত্বকের জন্য খুব উপকারী।

৫।আলু, টমেটো ও টকদই।

এক চা চামচ কুচি করা আলু, এক চা চামচ টমেটো পেস্ট এবং এক চা চামচ টকদই ভালো করে মিশিয়ে গলা ও মুখে ২০ মিনিট লাগিয়ে রাখুন। শুকিয়ে গেলে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।

৬।আলু, টকদই ও হলুদ।

সর্বপ্রথম এক চা চামচ কুচি আলু, এক চা চামচ টকদই এবং এক চিমটি হলুদ একটি বাটিতে নিন। তারপর ভালোভাবে মিশ্রন করুন এবং  ত্বকে লাগিয়ে রাখুন।১৫ মিনিট পরে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

সবশেষে একটি কথা আমাদের সকলকে মনে রাখা উচিত যে, প্রাকৃতিক উপাদান আলু দিয়ে ফর্সা হওয়ার ধারা মুখের অর্থাৎ রূপচর্চার করলে কোন পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হওয়ার সম্ভাবনা থাকে না। আলুর ধারা ফর্সা হওয়া আরো অনেক উপায় আছে। যাহা এই আর্টিকেল লিখে শেষ করা যাবে না। তাই আমি খুবই সংক্ষেপে এবং কার্যকরী ফল পাওয়া যায় সেই বিষয়গুলো উপস্থাপন করেছি। প্রাকৃতিক উপাদান ধারা ফলাফল পেতে হলে আপনাকে অবশ্যই দীর্ঘমেয়াদী ব্যবহার করতে হবে। আপনি ১-২দিন ব্যবহার করার ফলে বলবেন যে আপনার কোন আশানুরূপ ফল পাচ্ছেন না ।তাহলে বলবো ভাই আপনার জন্য এই প্রাকৃতিক উপাদান নয়। কারণ প্রাকৃতিক উপাদানের ধারা রূপচর্চা করতে হলে আপনাকে সর্ব প্রথম ধৈর্যশীল হতে হবে।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url